স্ক্রিনশটের মহিমা!

আরেক ফেবু সেলিব্রেটির কেলেংকারী ফাসঁ হইসে মাগার এইবার কোন স্ক্রিনশট বাইর হয় নাই (এখন পর্যন্ত)। এইটা মনে হয় ৫ নং ফেবু-সেলিব্রেটি-কেলেংকারী। তো ভাবলাম এই চান্সে একটা পুরনো পোষ্ট শেয়ার করি।

১. – আব্বা, ১০০ টাকা দ্যাও।
– গত বছরই না ৫০ টাকা নিলি!
– তাইলে দিবা না?
– না।
– না দিলে কিন্তু স্ত্রিনশট ছাইড়া দিমু।
– আইচ্ছা, কত লাগবো যেন বলতেছিলি?
– ৫০০ টাকা।
– আগেরটাই তো ভালো আছিলো। :/

২. আসামী – হুজুর আমার কোন দোষ নাই।
বিচারক – বল্লেই তো হবে না। প্রমান দেখান।
আসামী – কি প্রমান চান হুজুর বলেন।
বিচারক – স্ক্রিনশট আছে?
আসামী – আমি স্ক্রিনশট কই পামু হুজুর তয় চাক্ষুষ স্বাক্ষী আছে।
বিচারক – স্বাক্ষী সুক্ষীতে হবে না স্ত্রিনশট থাকলে দেখান নাইলে মামলা ডিসমিস। -_-

৩. পিচ্চি – আব্বু, সবাই বলে আমি নাকি তোমার ছেলে।
পিতা – হুম বাবা, তুমি তো আমারই ছেলে। ^_^
পিচ্চি – তাইলে স্ক্রিনশট দেখাও। না দেখাইতে পারলে বুঝবো তুমি আমার বাপ না। >:(

৪. বস – চারিত্রিক সনদপত্র আনেন নাই কেন?
চাকরী প্রার্থী – আরে স্যার কি বলেন, সেই যুগ কি এখন আর আছে নাকি?
– মানে?
– ফেসবুকে আমার নাম লিখে সার্চ দিলে কোন স্ত্রিনশট পাবেন না। খোদার কসম। বলেন স্যার, এই যুগে এর চাইতে বড় আর কি ক্যারেক্টার সার্টিফিকেট চান আপনি? 😀

৫. ছিনতাইকারী – যা আছে তাড়াতাড়ি বাইর কইরা দেন।
রিকশাতে বসা আরোহী – না করলে কি করবেন? আপনার হাতে তো ছুরি চাক্কু পায়খানা কিছুই নাই।
– আরে আবাল নাকি? এখন আর এইসব লাগে নাকি? যা আছে তাত্তাড়ি বাইর করেন নাইলে এখনি স্ক্রিনশট ছাড়তেছি ফেসবুকে।

৬. ভবিষৎত বিসিএস পরীক্ষার প্রশ্নঃ

  • ধরুন আপনি ইনবক্সে লুলামি করতে গিয়ে একটা ছাইয়া নিকের হাতে কট খেলেন এবং পরদিন আপনার নামে ফেসবুকে কিছু নোংরা স্ক্রিনশট বেরুলো। এমতবস্থায় আপনি কি করবেন?

ক. নিজের ভুল স্বীকার করে অতি আবেগীয় পোষ্ট দিবেন?
খ. ’জীবনে কোনদিন কারো সাথে ইনবক্সে আপনার চ্যাটই হয় নাই’ – এইরকম কিছু বলবেন?
গ. ‘লুলামি করলে আমি করসি তাতে আপনার কি’ – ধরনের পোষ্ট দিবেন?
ঘ. ’লুলামি করে ধরা খাইসি তাতে কষ্ট নাই, কষ্ট হইলো নিকটা ছাইয়া আছিলো – :'( ’ – মনে মনে এইটা বলবেন?

৭. কম্পিউটার কিবোর্ডর সবচাইতে দামী বাটন কি? আপনি ভাবতেছেন স্পেসবার? এণ্টার? উহু, সবচে দামী বাটন হইলো PrtSc বাটনটা। কিছুদিন পর এই বাটনটা আলাদা করে বেচতে দেখলেও অবাক হমু না। :/ তেমনি এখন যে স্ক্রিনশট নেবার এ্যাপ, এডন বা সফটওয়্যার ফ্রি পাওয়া যায, যে দিন কাল পরসে, সেইগুলাই কিচুদিন পর হয়ে যাবে পেইড।

৮. – দোস্ত তোর নামে আর কয়টা স্ত্রিনশট বাইরাইছে? আমার নামে গত মাসেও ৪০টা বাইর হইছে।
– আরে রাখ, আমার বাপের নামে স্ক্রিনশট বাইর হইতো দিনে ১০০ টা। মাসে তিন হাজার।
– হে হে, আমার দাদার কাছে তোর বাপ তো নস্যি। যে সব দিনগুলোতে তার স্ত্রিনশট বাইর হইত, সেইসব দিনগুলাতে তিনি তার মাটির ব্যাংকে এক টাকার কয়েন ফেলতেন। এই যে ৩০ তলা লুল টাওয়ার দেখতেছোস, এইটা তার সেই মাটির ব্যাংক ভাইংগা বানানো। B-)

৯. দোস্ত – আমি তো সেলিব্রেটি হয়া গেচি রে!
– কোন হানকার সেলিব্রেটি হইছস?
– ফেসবুকের।
– কই তোর নামে তো কোন স্ত্রিনশট দেখলাম না।
– হ এই জাগাটাতেই একটু মাইর খায়া গেছি।
– হুম, স্ত্রিনশট বাইর না হওয়া পযন্ত তুই নিজেরে সেলিব্রেটি ভাবিস না। পাবলিকে হাসবো।

১০. এবারের বইমেলায় সবচাইতে কাটতি ছিলো যে বইটার, সেটার নাম বলুন তো।
‘১০০ জন ফেসবুক সেলিব্রেটির স্ত্রিনশট (ভিডিওসহ)’। হট কেকের মতো বিক্রি হচ্ছে গো দাদা। প্রেস থেকে এনে কুলাতে পারছি না।

১১. – হুজুর, আমার নামে তো স্ত্রিনশট বাইর হইছে ফেসবুকে। এখন কি করমু?
– এইটা তো সুসংবাদ বাবা।
– ধুর কি কন। আমার ৬ মাসের রিলেশন তো ভাংগে বসছে হুজুর। জলদি এক বোতল পানি পড়া দেন।
– আচ্চা এইটা নিয়া যাও, যে মাইয়া স্ক্রিনশট ছাড়ছে, ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সে নাকে-মুখে রক্ত উঠে মারা যাবে। বিফলে মূল্য ফেরত।
– শুকরিয়া হুজুর।

১২. ঘটক – ছেলে খুবি ভালো ভাইজান। দেখতে শুনতে ভালো, উলভারেইনের মতো উচা লাম্বা স্বাস্থ্যবান।
কনের বাবা – মাশাআল্লাহ, তাইলে তো ভালই।
– তয় একটু সমস্যা আছে।
– কও কি! কি সমস্যা?
– না তেমন কিছু না। ছেলের নাইন্টি পারসেন্টেই ওকে খালি গতমাসে ছেলের নামে ফেসবুকে স্ত্রিনশট বাইরাইছে।

১৩. আমেরিকার মিলিটারি উয়েপন স্ট্যাটাসটিকস – রকেট লাঞ্চার বিশ হাজার।
– লেজার গাইডেড মিসাইল – ৫০ হাজার।
– এন্টি এয়ার ক্রাফট মিসাইল – ১ লাখ।
– স্ত্রিনশট – ১০ লাখ।

 

আরেক ফেবু সেলিব্রেটির কেলেংকারী ফাসঁ হইসে মাগার এইবার কোন স্ক্রিনশট বাইর হয় নাই (এখন পর্যন্ত)। এইটা মনে হয় ৫ নং ফেবু-সে…

Posted by Proloy Hasan on Monday, October 19, 2015

স্বপ্নদুয়ারে রেজিষ্ট্রেশন না করেও আপনার ফেসবুক আইডি দিয়েই মন্তব্য করা যাবে। নীচের টিক চিহ্নটি উঠিয়ে কমেন্ট করলে এই পোষ্ট বা আপনার মন্তব্যটি ফেসবুকের কোথাও প্রকাশিত হবে না।

টি মন্তব্য