বালুর ট্রাকের ব্যবহার আরো যেসব ক্ষেত্রে হতে পারেঃ

Gulshan-BNp-office-4

হালের সেনশেসান হচ্ছে, বালুর ট্রাক। যেভাবে আমরা এই সেনশাসানকে আমাদের দৈনন্দিন কাজে লাগাতে পারিঃ

১) প্রাইমারি স্কুলের বাচ্চাদের বইতে লেখা থাকবে – ফ তে ফালু, ব তে বালুর ট্রাক।

২) হাই স্কুলের বাংলা ব্যকরণ বইতে লেখা থাকবে – এ সংসার বালুর ট্রাক; কেউ কারো নয়।

৩) মানুষজনের মোবাইলে হুমকি ধামকির পরিভাষা বদলে যাবে –

”কি!! নাটকির পুত তোর এত্ত বড় সাহস আমারে ব্লক করছস! খাড়া কাইলকাই তোর বাসার সামনে যদি বালুর ট্রাক না রাখছি তো আমর নাম চাক্কু মিয়া না…!!”

৪) – পাত্র নিরাপত্তারক্ষী বাহিনীতে চাকরি করে।
– কি পোস্ট?
– বালুর ট্রাকের ড্রাইভার! (কার্টেসিীঃ Shuvo Kamal)

৫) – ওস্তাদ, হুনলাম আপনের নাকি প্রমোশন হইছে?
– হ
– আগে তো ট্রাকের ড্রাইভার আছিলেন… এখন কি হানিফের চেয়ার কোচ চালান নিকি?
– না, এখনো ট্রাকই চালাই। তয় মাঝে মধ্যে ডিবি অফিসারেরা রিকুষ্ট কইরা খালেদা ম্যাডামের অফিস বা বাসার সামনে নিয়া যায়।
– কন কি? হাছা নাকি?
– তাইলে কি মিছা কইতেছি নাকি? কাইলকাই তো খালেদা ম্যাডামের পারসোনাল ডেরাইভারের লগে একলগে বইয়া চা-বিড়ি খাইলাম।

Khaleda1

৬) – দেখো ভাই, আমিন বাজার থেকে বালু নিয়ে সোজা কাওরান বাজার চলে আসবা।
– রাস্তায় যদি পুলিশ ধইরা গুলশানে লইয়া যায়, তাইলে কি করমু স্যার?
– তাইলে সেই ট্রিপের টাকা পাইবা না। উল্টা আমারে ৫ হাজার দিতে হইবো!
– কেন স্যার? এইটা কেমুন কথা?
– ওমা! তোমার ছবি পেপারে উঠবো, সাংবাদিকরা ইন্টারভিউ নিবো না। আর আমারে টেকা দিবা না?

৭) ট্রাকের ব্যবসায়ীদের ইনকামের নতুন ধান্ধা করতে পারবেন। যেখানে বালুর ট্রাক ভাড়া দেয়া হবে, সেখানে আলাদা করে রেডিমেড বালুসহ ট্রাক ভাড়া করতে পাওয়া যাবে। বড় বড় ট্রাকের গায়ে লেখা থাকবেঃ রাজনৈতিক কাজের জন্য, বিশেষ করে গুলশানস্থ বিএনপি অফিসের সামনে ব্যবহারের জন্য এই ট্রাক ভাড়া দেয়া হইবে। অগ্রিম বুকিং দিলে আকর্ষনীয় মূল্য ছাড়!

মূল্য তালিকাঃ (প্রতি ২৪ ঘন্টার জন্য)

বালুভর্তি ট্রাক – ১০ হাজার টাকা।
ইটভর্তি ট্রাক – ১৫ হাজার টাকা।
রডভর্তি ট্রাক – ২০ হাজার টাকা।
সিমেন্টভর্তি ট্রাক – ৩০ হাজার টাকা।

৮) নিখিল বাংলাদেশ ট্রাক মালিক সমিতি থেকে নতুন দাবী দাওয়া আসতে পারেঃ রাজনৈতিক নেতাদের বাড়ির সামনে ট্রাক রাখা হলে, তার ড্রাইভারের থাকা, খাওয়া ও তাশ খেলার সু-বন্দোবস্ত থাকতে হবে। এমনকি, ট্রাক ড্রাৈইভারদের, বিশেষ করে বালুর ট্রাকের ড্রাইভারদেরকে রাজনৈতিক অগ্রাধিকার দিতে হবে/দেও।

৯) কিন্তু মাঝে সাজে এই রকম হুমকিতে হিতে বিপরীত হইতারে। যেমনঃ

– আংকেল, কাইলকার মধ্যে যদি আপনার মেয়ের সাথে আমারে বিয়া না দেন তো পরশু সকাল বেলা ঘুম থিকা উইঠা দেখবেন বাসার সামনে ৫ টনি বালুর ট্রাক।

– আলহামদুলিল্লাহ বাবা। এ তো খুবই খুশীর খবর। বালুর দাম বাড়ার কারনে দুই মাস ধরে বিল্ডিংয়ের কাজ বন্ধ ছিলো। তাইলে ইনশাল্লাহ পরশু সকাল থিকা বাড়ির কাজ আবার ধরতে পারবো। তা বাবা, খালি বালুর ট্রাকই রাখবা নাকি ইট আর সিমেন্টর ট্রাকও থাকবে?

১০) সবশেষে একটা রিয়েল লাইফ জোকঃ

গুলশানে আটকে থাকা গাড়িগুলোর একটি ছিল মাটিভর্তি পিকআপ। পিকআপের চালক মো.আলমগীর বলেন, ‘পুলিশরে কইলাম, স্যার, আমার গাড়িতে তো বালু নাই, আমারে নিয়া কী করবেন। কইল, কবর দিমু। কবর দিতে মাটি লাগব। এরপর দেখি ইটের গাড়িও আনছে। কবর বোধ হয় বান্ধাইব।’

স্বপ্নদুয়ারে রেজিষ্ট্রেশন না করেও আপনার ফেসবুক আইডি দিয়েই মন্তব্য করা যাবে। নীচের টিক চিহ্নটি উঠিয়ে কমেন্ট করলে এই পোষ্ট বা আপনার মন্তব্যটি ফেসবুকের কোথাও প্রকাশিত হবে না।

টি মন্তব্য

3 thoughts on “বালুর ট্রাকের ব্যবহার আরো যেসব ক্ষেত্রে হতে পারেঃ

  1. সাইটটার ডিজাইন চমৎকার হয়েছে! বাংলায় এত সুন্দর সাইট কমই দেখা যায়। সাইটে বাংলা ফন্ট এম্বেড কিভাবে করা যায় জানার কৌতুহল হচ্ছে। ভাল থাকবেন।

    • কমেন্টে রাউণ্ড এভাটারগুলোও অনেক সুন্দর হয়েছে। সোশ্যাল শেয়ার বাটনগুলো রিলেটেড কন্টেন্টগুলোর আগে দিলে মনে হয় ভাল হবে। সহজে খুঁজে পাওয়া যাবে। মানুষ আরো সহজে শেয়ার করতে পারবে।

    • প্রলয় হাসান says:

      হা হা, থ্যাংকস ভাই। সবিনয়ে বলি, সাইটের প্রায় শতভাগ কাজই আমার নিজের হাতে করা। যদিও ওয়েব ডেভেলপিং এর ব্যাপারে আমি একেবারেই ক অক্ষর গো মাংস।

      ফন্টের ব্যাপারে বলি, এখনকার বেশীরভাগ বাংলা ফন্টগুলো ইউনিকোড ভিত্তিক হওয়াতে আলাদা করে আর সাইটে এমবেড করতে হয় না। তবে আপনি যদি বাংলাকে দৃষ্টিনন্দনভাবে পড়তে চান, তবে জনপ্রিয় এক বা একাধিক ফন্ট (যেমনঃ সোলায়মান লিপি, প্রথমা বা ’বাংলা’) আপনার ব্রাউজারে ইন্সটল করতে পারেন। এখান থেকে টিউটোরিয়াল পড়ে নিতে পারেন।

      আর যদি আপনার ওয়েব সাইটে অথবা সার্ভারে কোন বাংলা ফন্ট ইন্সটল/এম্বেড করতে চান, তবে যে কোন এফটিপি ক্লায়েন্ট দিয়ে আপনার সাইটের থিমের ফন্ট ফোল্ডারে ঐ ফন্টটি নিয়ে রাখুন। তারপর সিএসএস ফাইলে গিয়ে সেই ঠিকানাটা সাইটকে চিনিয়ে দিন। তারপর লাইভ সাইটে গিয়ে পেজটা রিফ্রেশ দিন। ব্যস। 🙂

      আপনাকে এই রিপ্লাইটি কাল অপিসে বসে দু বার টাইপ করেছিলাম কিন্তু অপিসের ল্যাপটপের যান্ত্রিক গোলযোগের কারনে সেটাকে আর পাবলিশ করতে পারিনি। এখন সেটাকে আবার প্রথম থেকে টাইপ করে লিখলাম। 🙁

      আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ র হাসান ভাই। অনেক শুভ কামনা রইলো। 🙂

Comments are closed.