আমার ছোটবেলার স্মৃতিচারণ

চারিদিক অন্ধকার করে হঠাৎ মুষলধারে বৃষ্টি নামার কোন তুলনা ইহ জগতে নেই। সাথে খানিক পর পর চারপাশ কাপিঁয়ে বজ্রপাত! আমি বৃষ্টি আর বর্ষাকালের প্রতি মারাত্নক রকমের অবসেসড। এমনকি জোৎস্নার চাইতেও!

এমন দিনে চারিদিকে কেমন যেন একটা আদুরে আদুরে শীত শীত ভাব! ছোটবেলায় এই সময়ে কাথাঁ মুড়ি দিয়ে আম্মুর গায়ের সাথে লেপ্টে শুয়ে গল্প শুনতাম। আম্মু আমাদের গল্প শোনাতে শোনাতে যখন ঘুমিয়ে পড়তেন, তখন নিজেই ঠাকুরমার ঝুলি বুকসেলফ থেকে নিয়ে শুয়ে শুয়ে পড়তাম। রূপকথা বা ভুতের গল্প পড়ার জন্য এমন বৃষ্টিমুখর দিনের চাইতে উপযুক্ত সময় আর হয় না।

সন্ধ্যা নামতেই হঠাৎ লোডশেডিং এ ঘরের বাতি নিভে যেতো। আম্মু উঠে গিয়ে চার্জ লাইট ধরাতেন। যে সময় ওটা নষ্ট থাকতো, সে সময় ভরসা ছিলো হারিক্যান। হারিকেনের সলতে থেকে কেরোসিন পোড়া গন্ধ. আর বাইরে থেকে জানালার শিক গলে ভেসে আসা ভেজা মাটির সোদাঁ গন্ধ – দুটো একটার সাথে আরেকটা মিলে মিশে একদম একাকার হয়ে যেতো।

আমাদের বংশাল ভিলার টিনের চালে তখন বৃষ্টি পড়ার শব্দ শুনতে শুনতে আর সেই গন্ধ শুকতেঁ শুকঁতে কখন যে ঘুমিয়ে যেতাম!

এখনো বৃষ্টি হলে ছোটবেলাকে মনে পড়ে ভীষণ…এখন যেমন পড়ছে…অথচ সেই দিনগুলো আমার জীবন থেকে চিরতরে হারিয়ে গেছে, আর কখনোই ফিরে পাবো না; এটা মনে করতেই সমস্ত বুকজুড়ে হাহাকারের ঝড় উঠে। এই কারনেই আমি কখনো বড় হতে চাইনি।

স্বপ্নদুয়ারে রেজিষ্ট্রেশন না করেও আপনার ফেসবুক আইডি দিয়েই মন্তব্য করা যাবে। নীচের টিক চিহ্নটি উঠিয়ে কমেন্ট করলে এই পোষ্ট বা আপনার মন্তব্যটি ফেসবুকের কোথাও প্রকাশিত হবে না।

টি মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *