আমার ’ইলাইজিয়াম’ দেখার টুকরো অভিজ্ঞতা

11175291_800

এইমাত্র ইলাইজিয়াম (Elysium) দেখে শেষ করলাম। গতকাল এটার ব্লু রে রিলিজ হয়েছে। অ-ফ্রিকিং-সাধারন একটা মুভি! এটা দেখার আগে অবলিভিয়ন ছিলো আমার দেখা এই বছরের সেরা সাইফাই। এখন অবলিভিয়ন আছে দুই নম্বরে। বয়স বিচারেও অবলিভিয়ন পেছনে পড়বে। কারন ইলাইজিয়ামের কাহিনী গড়ে ওঠেছে ২১৫৪ সালকে ঘিরে। আর অবলিভিয়ন ২০৭৭ সালকে ঘিরে।

টেকনোলজি, এ্যাকশন, হেভি গানার, পলিটিক্স, প্রেম, কাম, ড্রামা, থ্রিলার, সাসপেন্স, পুজিঁবাদ, সামাজ্রবাদ, পরিবেশবাদ, শঠতা, কুটিলতা, ভবিৎষত পৃথিবীর রূপ, মানবতার তরে জন্য জীবনদান – কি নেই এই মুভিতে?

এই মুভিতে আমি একটা ব্যাপার এক্সিপেরিয়েন্স করেছি, যেটা এর আগে আর কোন মুভি দেখার সময় করিনি। সেটা হলো, পুরো মুভিটা দেখার সময়ই মনে হচ্ছিলো, এই মুভিটার স্ক্রিপ্ট যেন আমার লেখা। মানে, আমি যেখানে যেটা যেভাবে চাইতাম, পরিচালক ঠিক তাই তাই মুভিতে দেখিয়েছেন। মনে হলো, আমি তার জাগায় থাকলে ঠিক এই ব্যাপারটাগুলোই করতে চাইতাম, দেখাতে চাইতাম।

আমি প্রায়ই স্বপ্ন দেখি, মেড-বে’র মতো অসম্ভব উন্নত প্রযুক্তির একটা মেডিক্যাল ট্রিটমেন্ট সিস্টেম। আমার সেই স্বপ্নের একটা দারুন ডেমো পরিচালক ন্যীল ব্লুমক্যাম্প দেখিয়েছেন। মুভিতে দেখা যায়, মেড বে’তে যাকে শোয়ানো হয়, তার শরীরে ব্লাড ক্যান্সার থাকলেও সেটা সারাতে ১০ সেকেন্ডের বেশী লাগে না। গ্রেনেড বিস্ফরনে ভিলেনের মুখ মন্ডলের তিন ভাগের আড়াই ভাগ উড়ে গেছে। সেটাও মেড বে আক্ষরিক অর্থেই চোখের পলকে সারিয়ে দেয়! আজ এটা সাই-ফাই তে দেখছি, আমি বিশ্বাস করি, একসময় পৃথিবীর মানুষ সেটা চাক্ষুষ প্রত্যক্ষ ও ভোগ করবে। টেকনোলজির উপর আমার অগাধ বিশ্বাস। অগাধ ভালোবাসা।

চমৎকার একটি কাহিনীতে মুভি এগিয়ে গেছে মুটামুটি শ্বাসরুদ্ধকরভাবে। অষ্ট্রেলিয়াতে ২০০৪ সালে সেভিং প্রাইভেট রায়ান দেখে প্রথম ম্যাট ডিমনের অভিনয়ের প্রেমে পড়ি। এরপর বর্ণ আইডেনটেটি, গ্রীনজোন, দ্য ডিপারটেড, কনটাজিওন, দ্য এডজাষ্টমেন্ট ব্যুরে – একটার পর একটা বক্স অফিস হিট করা মুভি দিয়ে গেছেন ডিমোন। আর এ বছর ইলাইজিয়াম।
জোডি ফস্টারকে দেখে অবলিভিয়নের কথা মনে পড়েছে। উভয় মুভিতেই এই ধাচের একটি করে খল চরিত্র রয়েছে। অভিনয় করেছেন প্রায় একই বয়সী দুজন মহিলা। আর শার্লটো কুপ্লেকে দেখে মনে পড়েছে ডিসট্রিক্ট নাইনের কথা। তবে সে মুভিতে কুপ্লে নায়ক থাকলেও এই মুভিতে ছিলেন মূল ভিলেন।

ইলাইজিয়ামকে নিয়ে বিস্তারিত রিভিউ লেখার ইচ্ছা আছে সময় পেলে।

 

স্বপ্নদুয়ারে রেজিষ্ট্রেশন না করেও আপনার ফেসবুক আইডি দিয়েই মন্তব্য করা যাবে। নীচের টিক চিহ্নটি উঠিয়ে কমেন্ট করলে এই পোষ্ট বা আপনার মন্তব্যটি ফেসবুকের কোথাও প্রকাশিত হবে না।

টি মন্তব্য